মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

ভূমি উন্নয়ন কর

ভূমি উন্নয়ন কর কীঃ

ইতোপূর্বে খাজনা হিসেবেই এটি পরিচিত ছিল। ব্যক্তি বা সংস্থা পর্যায়ে জমির মালিকানা অর্জন বা জমি ব্যবহার করা হলে এর জন্য সরকারকে নির্ধারিত পরিমাণ অর্থ বার্ষিক হারে পরিশোধ করতে হয়; এটিই হলো ভূমি উন্নয়ন কর বা জমির খাজনা। বর্তমানে ২৫ বিঘার উপরে কৃষি জমি থাকলে এর জন্য নির্ধারিত হারে ভূমি উন্নয়ন কর দিতে হয়; তবে অকৃষি, অর্থাৎ আবাসিক, শিল্প বা বাণিজ্যিক প্রভৃতি যে কোনো ধরনের জমির জন্যই ভূমি উন্নয়ন কর প্রযোজ্য, তার পরিমাণ যা-ই হোক না কেন।


যে কারণে এটি পরিশোধ করা জরুরীঃ

  • জমির মালিকানাস্বত্ত্ব দাবীর ক্ষেত্রে এটি অন্যতম একটি নিশ্চিত প্রমাণ; কেননা যে রশিদের মাধ্যমে (প্রচলিত ভাষায় দাখিলা) ভূমি উন্নয়ন কর গ্রহণ করা হয়,  তা আদালতেও গ্রহণযোগ্য।
  •  যেহেতু এটি সরকারী পাওনা, তাই এটি সময়মতো পরিশোধ না করলে সংশ্লিষ্ট জমির মালিকের বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থা গ্রহণ করার বিধান রয়েছে; এমনকি  সরকারী পাওনা আদায় আইন, ১৯১৩এর বিধান মতে উক্ত জমি নিলামের দ্বারা এর মালিকের মালিকানাস্বত্ত্বও বিলুপ্ত হতে পারে।
  • জমি হস্তান্তর বা কেনা-বেচার পর নামজারী বা মিউটেশন করানো অত্যন্ত জরুরী; আর এর জন্য হাল সন পর্যন্ত ভূমি উন্নয়ন কর পরিশোধকৃত থাকতে হয়।

ভূমি উন্নয়ন করের পরিমাণঃ

এজন্য প্রথমেই আপনার জমির ধরণ বা শ্রেণী সম্পর্কে জানতে হবে আপনাকে। সার্বিকভাবে জমিকে মূলত দুটি প্রধান শ্রেণীতে ভাগ করা হয়-কৃষি ও অকৃষি শ্রেণীর জমি। অকৃষি জমি আবার বিভিন্ন রকম হতে পারে, যেমন-আবাসিক, শিল্প বা বাণিজ্যিক প্রভৃতি। এছাড়া, আপনার জমির অবস্থানভেদে এর ভূমি উন্নয়ন করের হার কম-বেশী হতে পারে। নীচের ছকে বিভিন্ন শ্রেণীর জমির সরকার নির্ধারিত ভূমি উন্নয়ন করের হার উল্লেখ করা হলোঃ

ক) কৃষি জমির ক্ষেত্রে ভূমি উন্নয়ন করের পরিমাণঃ

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter